শুক্রবার, ২৩ Jul ২০২১, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদঃ
হংকং ক্রিকেটে দলের অধিনায়ক আইজাজ খান গ্রেফতার মাইন প্রতিরোধী গাড়ির প্রথম চালান ঢাকায় বিধিনিষেধ ভঙ্গ করে চলছে ফেরি, পায়ে হেঁটে ঢাকা আসছে মানুষ ১৮ বছর হলেই পাওয়া যাবে করোনার টিকা, সিদ্ধান্ত দ্রুতই টি-টোয়েন্টি সিরিজে সমতা ফেরালো জিম্বাবুয়ে বিধিনিষেধের প্রথম দিনে রাজধানীতে ৪০৩ জন গ্রেপ্তার বরগুনার দুই নারী কামারের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ আফগান বাহিনীকে সহযোগিতায় কয়েক দফা বিমান হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র : পেন্টাগন দ.আফ্রিকায় সহিংসতায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩৭ পর্দা উঠল টোকিও অলিম্পিকের সন্তানকে রক্ষা করে মারা গেলেন মা পদ্মার পিলারে ফেরির ধাক্কা, তদন্ত কমিটি গঠন বিধিনিষেধ অমান্য: মালয়েশিয়ায় ২৫ বাংলাদেশি গ্রেপ্তার গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ১৬৬, শনাক্ত ৬৩৬৪ কঠোর বিধিনিষেধে রাজধানীর চিত্র
বরগুনার পাথরঘাটায় পরকিয়ার জেরে তিন সন্তানের মাকে নিয়ে পালালেন প্রতিবেশি

বরগুনার পাথরঘাটায় পরকিয়ার জেরে তিন সন্তানের মাকে নিয়ে পালালেন প্রতিবেশি

রাজু আহমেদ, পাথরঘাটা প্রতিনিধিঃ

বরগুনা জেলার পাথরঘাটা থানার কাঠালতলী ইউনিয়নের কালিবাড়ির ৬ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা হাফিজ খাঁ (৫৫)  পরকিয়ার জেরে তার প্রতিবেশি হনুফা (৪০) বেগম (তিন সন্তানের মা) কে নিয়ে পলায়ন করে। প্রতিবেশী হনুফা বেগমের স্বামীর নাম কাঠালতলী ইউনিয়নের কালিবাড়ির ৬ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ছগির হেসেন (৪৫)। তার স্বামী এর দারিদ্রতার সূযোগ নিয়ে সে প্রায়ই তাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করত। পরবর্তীতে হাফিজ খাঁ তাদের টাকা পয়সা ধার দিত ও আরো বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করত। এর হনুফা বেগমের স্বামী বা পাড়া প্রতিবেশিরা সন্দেহ করত না। এই সুযোগে তারা তাদের মধ্যে এক ধরনের অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে।

হাফিজ খাঁ ও হনুফা বেগম তার স্বামী ছগির হেসেন এর ঘরে থাকা নিয়ে একই উপজেলার গোলবুনিয়া নামক গ্রামে পালিয়ে যায়।হনুফা বেগমের বাবার বাড়ি কালমেঘা ইউনিয়নের পূর্ব কালমেঘার  গোলবুনিয়া নামক গ্রামে।  স্থানীয় লোকজন পালিয়ে আসার ঘটনা জানতে পেরে ধরে ইউপি সদস্যের হাতে তুলে দেয়। পরে ইউপি সদস্য উভয়পক্ষের অভিভাবক ডেকে  সব শুনে মেয়েকে মেয়ের বাবা ও হাফিজ খাঁকে তাদের স্থানীয় ইউপি সদস্য এর হাতে তুলে দেয়।

আমাদের প্রতিনিধি রাজু আহমেদ সড়জমিনে গেলে উঠে আসে অরো অনেক তথ্য।

ভুক্তভোগী  ছগির হেসেন জানান,  আমি প্রথমে সন্দেহ করতাম না। আমার প্রতিবেশিরা আমাকে মাঝে মাঝে অনেক কিছু বলত। একদিন আমি নিজেই  তাদের আপত্তিকর অবস্থায় ধরে ফেলি। তখন হাফিজ খাঁ আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। আমি মানসম্মান ও তিনটা সন্তানের দিকে তাকিয়ে কাউকে কিছু বলিনি। মনে করেছি ঠিক হবে। কিন্তু তারা ঠিক না হয়ে আমার কিছু টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয় ইউপি সদস্যরা সালিসী করলেও আমার টাকা পয়সা  ও স্বর্ণালংকার ফেরত দেয়নি। কারো কোন বিচার করেনি। আমি এর বিচার চাই।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply




মালিকানা স্বত্ব © এমএমবি নিউজ ২৪- ২০২১
ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ।